ডলারের দাম বেড়ে সাড়ে ৮৮ টাকা

টাকার বিপরীতে শক্তিশালী অবস্থায় মার্কিন ডলার। দেশের ব্যাংকগুলোতে এখন নগদ মার্কিন ডলারের মূল্য সাড়ে ৮৮ টাকা উঠেছে। আমদানি পর্যায়ের ডলারের দর উঠেছে ৮৫ টাকা ২৫ পয়সা।

তবে খোলা বাজারে আরও বেশি দামে কেনা-বেচা হচ্ছে ডলার। ব্যাংক সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় দেশে আমদানি চাপ বেড়েছে।

ফলে এর দায় পরিশোধে বাড়তি ডলার লাগছে। এ কারণে ডলারের দর বাড়ছে। তবে বাজার স্থিতিশীল রাখতে ব্যাংকগুলোর চাহিদার বিপরীতে ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এদিকে, দীর্ঘদিন স্থিতিশীল থাকার পর গত মাসের শুরু থেকে টাকার বিপরীতে ডলারের দাম বাড়তে শুরু করে। আগস্টে আন্তঃব্যাংক ডলারের দামে বাড়ে ৪০ পয়সা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক নির্ধারণ করা আন্তঃব্যাংক ডলারের দাম এখন ৮৫ টাকা ২০ পয়সা। এর আগে গত বছরের জুলাই থেকে গেল মাস আগস্ট পর্যন্ত ডলারের দাম ৮৪ টাকা ৮০ পয়সায় স্থিতিশীল ছিল।

ব্যাংকগুলোর তথ্য অনুযায়ী, আজ রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) আমদানি দায় মেটাতে ব্যবসায়ীদের থেকে দেশি ও বিদেশি খাতের বেশিরভাগ ব্যাংক ৮৫ টাকা ২৫ পয়সা।

তবে নগদ ডলারের মূল্য বেশিরভাগ ব্যাংকে ৮৭ টাকার উপরে রয়েছে। কয়েকটি ব্যাংক নগদ ডলার সাড়ে ৮৮ টাকায় বিক্রি করছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েবসাইটে ২ সেপ্টেম্বর ব্যাংকগুলোর ঘোষিত মুদ্রা বিনিময় হার অনুযায়ী, নগদ ডলারের দর সবচেয়ে বেশি উঠেছে ব্র্যাক ব্যাংক,

এনআরবিসি ও আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের। ব্যাংকগুলোর নগদ ডলারের দর ছিল ৮৮ টাকা ৫০ পয়সা। এছাড়া বেশির ভাগ ব্যাংকই ৮৭ টাকা থেকে ৮৮ টাকায় ডলার বিক্রি করছে।

সর্বনিম্ন দরে নগদ ডলার বিক্রি করছে ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান ৮৫ টাকায় এবং বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের ডলারের দর ছিল ৮৫ টাকা ৬০ পয়সা।

ব্যাংকগুলোর মতো মানিএক্সচেঞ্জ হাউজগুলোও বেশি দামে ডলার বিক্রি করছে বলে জানা গেছে। মতিঝিল পাইওনির এক্সচেঞ্জের এক কর্মকর্তা জানান, আজ (রোববার) দিনের শুরুতে বাংলাদেশে ডলার কিনছেন ৮৭ টাকা ৫০ পয়সায় আর বিক্রি করছে ৮৭ টাকা ৭০ পয়সায়।

এদিকে, খোলাবাজারেও দাম ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে। খোলা বাজারে আজকের ডলার বিক্রি হচ্ছে ৮৭ টাকা ৮০ পয়সা থেকে ৮৯ টাকা পর্যন্ত এবং কিনছে ৮৭ টাকা থেকে ৮৭ টাকা ৩০ পয়সা।

খোলা বাজারের এক ডলার বিক্রেতা বলেন, ভ্রমণ কিংবা অফিসিয়াল কাজে যারা বিদেশ যান তারাই মূলত খোলা বাজার থেকে ডলার কেনেন। এতদিন করোনার কারণে অধিকাংশ দেশে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ছিল। এখন আস্তে আস্তে বিভিন্ন দেশের বর্ডার খুলে দেওয়া হচ্ছে। ফলে বিদেশ যাত্রা বাড়ছে। তাই ডলারের চাহিদাও বেড়েছে।

তিনি জানান, আগস্টের শুরুতেও ৮৫ টাকায় ডলার বিক্রি করেছি। এক মাস আগের চেয়ে প্রতি ডলারে এখন দুই থেকে তিন টাকা বাড়তি রেট বলে তিনি জানান।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) বেসরকারি এনসিসি ব্যাংক ৮৫ টাকা ২০ পয়সায় ডলার বিক্রি করেছে। কিনেছে ৮৪ টাকা ২৫ পয়সায়। তবে নগদ ডলার বিক্রি করছে ৮৬ টাকা ২৫ পয়সার উপরে।

রাষ্ট্রায়ত্ত জনতা ব্যাংক ক্যাশ ডলার ৮৭ টাকায় বিক্রি করছে আর কিনছে ৮৪ টাকা ৫০ পয়সায়। এছাড়া আমদানি-রফতানিতে ডলারের বিক্রি মূল্য ৮৫ টাকা ২৩ থেকে ২৫ পয়সায়।

বাজার স্থিতিশীল রাখতে ডলার কেনায় রেকর্ড গড়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে সবমিলিয়ে প্রায় ৮ বিলিয়ন (৮০০ কোটি) ডলার কিনেছে।

এর আগে, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৫ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। গত অর্থবছরের আগে সেটিই ছিল সর্বোচ্চ ডলার কেনার রেকর্ড। এখন বৈদেশিক মুদ্রার বাজার স্থিতিশীল রাখতে ডলার বিক্রি অব্যাহত রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

সূত্র: ঢাকাপোস্ট।