মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করবে দই

মানসিক চাপ আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অংশ হয়ে গিয়েছে। দিনের বেশিরভাগ সময় বিষণ্ণতা কাজ করে। আর এর প্রভাবে হজমে সমস্যা হয়, দেখা দেয় উচ্চ রক্তচাপ ও স্নায়ুর সমস্যা। এজন্য আমাদের প্রথম উচিত মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকা।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এমন কিছু খাবার রয়েছে যা খেলে মানসিক চাপ খুব সহজে দূর হয়। বিশেষজ্ঞরা বলছে, দই এমন একটি খাবার যার স্বাস্থ্য উপকারিতা অনেক। সম্প্রতি, গবেষকরা দুধ সম্পর্কে একটি গবেষণা করেছিলেন যেখানে দুধের উপকারের একটি দীর্ঘ তালিকা দিয়েছেন। সেই গবেষণায় সম্প্রতি একটি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। দই আমাদের কীভাবে মানসিক চাপ দূর করে চলুন জেনে নেওয়া যাক।

হতাশা দূর করে: গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন যে দইতে ল্যাকটোব্যাকিলাস রয়েছে যা এক ধরণের ব্যাকটেরিয়া বান্ধব ব্যাকটেরিয়া। এটি শরীরে মাইক্রোবায়োমের চরিত্র পরিবর্তন করতে মূল ভূমিকা পালন করে। এর কারণে হতাশা দূর হয় সহজেই। মস্তিস্কে হরমোন নিঃসরণে দই বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

স্বাস্থ্য ও মেজাজা ভালো রাখে: দইয়ের বিষয়ে সেন্টার ফর ব্রেনের পিএইচডি শীর্ষস্থানীয় গবেষক আলবান গালটিয়ার বলেছেন, ‘দই স্বাস্থ্য এবং মেজাজ উভয়ই উন্নত করতে যাদুর মতো কাজ করে’। গবেষণায় দেখা গেছে যে অন্ত্রের মাইক্রোবায়োম মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দইয়ের মতো প্রোবায়োটিকগুলো দেহে বন্ধুত্বপূর্ণ অন্ত্র ব্যাকটেরিয়ার প্রাচুর্য বাড়িয়ে তোলে এবং মানুষকে আরও স্বাচ্ছন্দ্যময় করে তোলে।

দই খাওয়ার সময়: বিজ্ঞানীরা বলছেন যে, দই সেবন কেবলমাত্র অন্ত্রের ব্যাকটিরিয়া নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে না, এর পাশাপাশি মানসিক চাপ হ্রাস করে মস্তিষ্কের উন্নতিও করে। এজন্য সকালে দই খাওয়ার চেষ্টা করুন।

পুষ্টিকর খাবার দই: ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, রাইবোফ্লাভিন, ভিটামিন বি -১২, ভিটামিন বি -২, ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাশিয়াম জাতীয় পুষ্টি দইতে পাওয়া যায়। তবে চিনি দিয়ে দই খেলে এর গুণাগুণ নষ্ট হয়ে যায়। দইয়ে ভিটামিনের উপস্থিতি শরীরে হিমোগ্লোবিন বাড়ায় এবং স্নায়ুতন্ত্রকেও সুস্থ রাখে।