লজ্জাজনক ১৪৬ রানে নিউজিল্যান্ডকে হারাল বাংলাদেশ, তামিমের সেঞ্চুরি

নিউজিল্যান্ড যুবাদের বিপক্ষে মূল লড়াইয়ে নামার আগে আজ প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে টাইগার যুবারা।ক্যান্টেবুরি ইনভাইটেশন একাদশের বিপক্ষে যেখানে রানের পাহাড় গড়ে বিশাল ব্যবধানে জিতেছে সফরকারী বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। রোববার শুরু মূল সিরিজ। পরের চারটি ম্যাচ ২, ৬, ৯ ও ১৩ অক্টোবর।

৩৮৯ রানের বিশাল লক্ষ্য মাথায় নিয়ে ব্যাট করতে নামে ক্যান্টেবুরি ইনভাইটেশন একাদশ। ১ম ওভারেই স্বাগতিক ওপেনার মারিউকে কোন রান না করতে দিয়ে সাজঘরে ফেরান শরিফুল ইসলাম। তিনে নামা রেডফার্নকেও (৫) ফেরান শরিফুল। দুই দফাতেই উইকেটের পেছনে ক্যাচ নেন অধিনায়ক আকবর আলি।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে জোহরাব ও আনসেল ৪৬ রান যোগ করেন। ৩০ রান করা আনসেলকে বোল্ড করে যে জুটি ভাঙেন হাসান মুরাদ। পরবর্তী ওভারেই ক্লার্ককে পারভেজ হোসেন ইমনের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান অভিষেক দাস। সতীর্থদের বিদায় দেখতে থাকা ওপেন করতে নামা জোহরাব যখন পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসাবে আউট হন ক্যান্টেবুরির রান তখন ২৪.১ ওভারে ৯১। ৫৫ বলে ৩৭ রান করেন জোহরাব।

এরপর শিহান ও ফকসও দ্রুত ফেরেন। ৮ম উইকেট জুটিতে ডানলপ ও হার্পার মিলে গড়েন হার না মানা ৮০ রানের জুটি। আলোক স্বল্পতায় ৫০ ওভার ব্যাট করতে পারেনি ক্যান্টেবুরি ইনভাইটেশন একাদশ। ৪৫ ওভারে ৭ উইকেটে ১৯৭ রান করে তাঁরা। যেখানে জিততে হলে ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে ৪৫ ওভারে তাঁদেরকে করতে হতো ৩৪৪ রান।

ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ১৪৬ রানে জয় পায় আকবর আলির দল। এর আগে লিঙ্কনের বার্ট সাটক্লিফ ওভালে টসে জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন টাইগার যুবাদের অধিনায়ক আকবর আলি। অনিক সরকারকে সঙ্গে নিয়ে এদিন ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নামেন তানজিদ হাসান তামিম।

দুজনেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে থাকেন। ১১.৪ ওভার (৭০ বল) স্থায়ী উদ্বোধনী জুটি থেকে আসে ৯১ রান। ২১ বলে ৩ চারে ২৬ রান করে আউট হন অনিক সরকার। এরপর তিনে নামা পারভেজ হোসেন ইমন একটু ধরে খেললেও চালিয়ে খেলা থামাননি তানজিদ হাসান। ১৮.৫ ওভারের মাথায় যখন তামিম আউট হন দলের রান তখন ১৪৯।

যার মধ্যে ১০২ রানই তামিমের! ৭৩ বলে ১৩ চার ও ২ ছক্কায় ১০২ রান করে আউট হন এই বাঁহাতি ওপেনার। এরপর যারা ব্যাট করতে নেমেছিলেন সবাই ছিলেন মারমুখী। ২ রানের জন্য ইমন ফিফটি মিস করলেও (৬৯ বলে ৪৮) ফিফটি তুলে নেন তৌহিদ হৃদয় (৪০ বলে ৫২) ও শাহাদত হোসেন (৫১ বলে ৫৭*)।

আটে নেমে শামীম হোসেন খেলেন বিধ্বংসী এক ইনিংস। ১৪ বলে ৬ চার ও ২ ছয়ে ৪২ রান করে রান আউট হন শামীম। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৮৮ রান স্কোরবোর্ডে জমা করে টাইগার যুবারা।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ ৩৮৮/৭ (৫০), তামিম ১০২, অনিক ২৬, ইমন ৪৮, হৃদয় ৫২, শাহাদত ৫৭*, মৃত্যুঞ্জয় ১৭, আকবর ২২, শামীম ৪২, সাকিব ০*। ক্যান্টেবুরি ইনভাইটেশন একাদশ ১৯৭/৭ (৪৫), মারিউ ০, জোহরাব ৩৭, রেডফার্ন ৫, আনসেল ৩০, ক্লার্ক ১, ফোকস ৩০, শিহান

১, ডানলপ ৪৮*, হার্পার ৩৫*; শরিফুল ৮.২-২-২০-২, অভিষেক ৯-১-২৭-১, গালিব ৬-০-২৯-০, শামিম ৬-০-৩৮-১, মুরাদ ১০-০-৩৯-২, মৃত্যুঞ্জয় ১.৪-০-৩-১, শাহাদত ৩-০-২৪-০, তানজিদ ১-০-১৫-০।

ফলাফলঃ বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ ১৪৬ রানে জয়ী (ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে)।