রুহানির বক্তব্যকে অপমানজনক বললেন ট্রাম্প

‘মার্কিন প্রশাসন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধিতায় আক্রান্ত হয়েছে’- ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির এমন বক্তব্যে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মঙ্গলবার টুইটারে দেয়া এক পোস্টে ইরানের বিবৃতিকে ‘মূর্খতা ও অপমানজনক’ উল্লেখ করে ট্রাম্প বলেন, ইরানের নেতারা যে বাস্তবতা বোঝেন না, রুহানির কথাতেই তা বোঝা যায়। এ সময় মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধাবস্থার জন্য ইরানকে দায়ী করেন তিনি।

টুইটবার্তায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, ভালো ও সহানুভূতিশীল কথা ইরানের নেতাদের পছন্দ নয়; বরং শক্তি ও বলপ্রয়োগের ভাষা তারা ভালো বোঝেন।

গত বৃহস্পতিবার ইরান কর্তৃক মার্কিন সামরিক ড্রোন ভূপাতিত করার পর দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে। সোমবার থেকে ইরানের বিরুদ্ধে নতুন করে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জারি করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি ও তার কার্যালয়ও রয়েছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি মার্কিন প্রশাসন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধিতায় আক্রান্ত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন।

প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, খামেনির বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞা জঘন্য ও নির্বোধের কাজ। হোয়াইট হাউসের এমন পদক্ষেপ তাদের বুদ্ধিপ্রতিবন্ধিতার বিষয়টিই প্রমাণ করল। এটি আরও প্রমাণ করেছে যে, তেহরানের সক্ষমতা তাদের অন্যতম ভয়ের কারণ।

রুহানির এমন বক্তব্যে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। নেতৃবৃন্দ বাস্তবতা উপলদ্ধি না করায় ইরানি জনগণ বিনা অপরাধে কষ্ট পাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

তবে ইরান বলছে, নতুন করে জারি করা নিষেধাজ্ঞার অর্থ হচ্ছে- দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের ইতি ঘটে যাওয়া।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ এক টুইটবার্তায় বলেন, ট্রাম্পের নতুন এ পদক্ষেপে দুদেশের চলমান উত্তেজনার আগুনে আরও ঘি ঢেলে দিল। এ নিষেধাজ্ঞার ফলে ইরান-যুক্তরাষ্ট্র উত্তেজনা প্রশমনে কূটনৈতিক পথ ট্রাম্প নিজেই বন্ধ করে দিলেন।