ইরানের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক লাইনে ফিরেছে

পাকিস্তান ও ইরান নিজেদের সম্পর্কের অবনতির ক্ষেত্রে প্রাথমিক ধাক্কাটি কাটিয়ে উঠেছে। দুই দেশের দীর্ঘদিনের সুসম্পর্ক যাতে ভিন্ন খাতে চলে না যায় সে জন্য তৃতীয় পক্ষকে হস্তক্ষেপের সুযোগ দেবে না বলে তারা সম্মত হয়েছে। দুই দেশের সরকারি কর্মকর্তা ও কূটনীতিকদের বরাতে এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের খবরে এমন তথ্য বলেছে।

গত ফেব্রুয়ারিতে ইরানের অস্থিতিশীল দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ সিস্তান-বেলুচিস্তানে আত্মঘাতী হামলায় বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর ২৭ জওয়ান নিহত হন। এর পরেই প্রতিবেশী দেশ দুটির মধ্যে সম্পর্কের টানাপোড়েন শুরু হয়।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দেয়ার অভিযোগ তুলেছিল ইরান। এর মধ্যে ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় এক তরুণের আত্মঘাতী হামলায় একটি আধাসামরিক বাহিনীর ৪৪ জওয়ান নিহত হন। এর পর চিরবৈরী ভারতও প্রতিবেশী পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একই দোষ চাপায়।

তখন মনে হয়েছিল, ভারত যেন ইরানে সন্ত্রাসী হামলার সুবিধা ভালোভাবেই ব্যবহার করতে পেরেছে।যখন কূটনৈতিক ও সামরিকভাবে ভারতের মোকাবেলা করতে হয়েছে, তখন সংকট মোকাবেলায় সংশ্লিষ্ট চ্যানেলের মাধ্যমে ইরানের সঙ্গে লাইনচ্যুত সম্পর্ক ফেরানোর চেষ্টা করেছে ইসলামাবাদ।

এভাবে কয়েক সপ্তাহের পর ইরানের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক স্বাভাবিক হয়েছে বলে এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের খবর দাবি করছে।

পাকিস্তানে ইরানের রাষ্ট্রদূত মেহদি অনারদোস্ত বলেন, দুই সীমান্ত দেশের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি মিটে গেছে এবং তৃতীয় পক্ষের ষড়যন্ত্রও ব্যর্থ হয়েছে।

সাংবাদিকদের ইরানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ইরান-পাকিস্তান সম্পর্কের ক্ষেত্রে দ্রুতই ভালো খবর শুনতে পাবেন আপনারা।