অনলাইনে বিচার করতে সব জেলায় ভার্চুয়াল আদালত হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রতিটি মানুষ যেন আদালতের কাছ থেকে ন্যায় বিচার পায় তার ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিচারকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ রোবাবার সকালে রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এই আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চাই প্রতিটি মানুষ ন্যায় বিচার পাক এবং সেই ব্যবস্থা যাতে নেওয়া হয় আপনারা (বিচারকরা) নিবেন। কারণ, আমি চাই না আমরা যেরকম বিচার না পেয়ে কেঁদেছি আর কাউকে যেন এভাবে না কাঁদতে হয়। সকলেই যেন ন্যায় বিচার পেতে পারি।’ আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিচার বিভাগের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গণতন্ত্র ছাড়া আইনের শাসন সুপ্রতিষ্ঠিত হবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গণতন্ত্র না থাকলে আইনের শাসন যেমন সুপ্রতিষ্ঠিত হয় না, তেমনি আইনের শাসন না থাকলে গণতন্ত্র টেকসই হয় না। আর আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় স্বাধীন বিচার ব্যবস্থার বিকল্প নেই।’ 

আইনগতভাবে বিচার বিভাগটা যেন সস্পূর্ণ স্বাধীন হয়। আর সেই সঙ্গে অর্থনৈতিকভাবে যেন স্বাধীনতা অর্জন করতে পারে সেই ব্যবস্থাই করে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এ সময় মামলার দীর্ঘসূত্রতা কমানোর আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘মামলার দীর্ঘসূত্রতা ও জট কমানোর লক্ষ্যে অধস্তন আদালতের জন্য বিচার নিয়োগ ও নতুন আদালত ট্রাইবুন্যাল স্থাপনসহ প্রয়োজনীয় পদ নিয়েছি। বিচার বিভাগের স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে আমরা তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার বিচার বিভাগে পৌঁছে দেওয়ারও উদ্যোগ নিয়েছি।’

‘আমরা ভার্চুয়াল আদালতও করে দেব’-জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনারা জানেন যে, ‍অনেক সময় আসামি ছিনতাই হয়ে যায়, সেই জন্য ইতিমধ্যে কেরানিগঞ্জ যে জেলাখানা করেছি, সেখানে বসে যেন এই অনলাইনে বিচার করা যেতে পারে সে ব্যবস্থা করে আদালত আমরা সৃষ্টি করেছি। পর্যায়ক্রমিকভাবে আমরা জেলায়ও করব।’